• – বাংলা বর্ণমালার সপ্তদশ ব্যঞ্জনবর্ণ, ত-বর্গের দ্বিতীয় বর্ণ, মহাপ্রাণ অঘোষ দস্ত্য থ্-ধ্বনির দ্যোতক।

বিশেষণ

  1. – কিংকর্তব্যবিমূঢ়, হতভম্ব;
  2. – নির্বাক, স্তম্ভিত (থ হয়ে যাওয়া)।

বুৎপত্তি

  • – সংস্কৃত স্থির > স্থ > থ (?)।

থই

থই

বিশেষ্য

  1. – (জলাশয়ের তলদেশে) স্থলভাগ বা ঠাঁই (নদীতে থই পাওয়া);
  2. – সীমা, কূল (দুঃখের থই পাচ্ছি না);
  3. – আশ্রয়।

উৎস

  • – সংস্কৃত স্থল।

থইথই

থইথই

বিশেষ্য অব্যয়

  1. – জলরাশির ভরপুর ভাবসূচক (জল থইথই করছে);
  2. – প্রাচুর্যসূচক (লোক থইথই করছে)।

উৎস

  • – দেশি।

থকথক

থকথক

বিশেষ্য অব্যয়

  1. – কাদার মতো ঈষৎ ঘনত্ব ও ঈষৎ তারল্যসূচক (কাদা থকথক করছে);
  2. – ক্ষত ইত্যাদির বিস্তৃতির ও সাংঘাতিক হওয়ার ভাবসূচক (ঘা-টা একেবারে থকথক করছে)।

থকথকে

থকথকে

বিশেষণ

  • – (তরল জিনিস সম্পর্কে) ঘন, গাঢ় (দইটা থকথকে হয়েছে, ঝোলটা থকথকে হয়ে গেছে)।

থকা

থকা

ক্রিয়া

  • – (পরিশ্রমের ফলে) ক্লান্ত বা অবসাদগ্রস্ত হওয়া, হাঁপিয়ে যাওয়া (আর হাঁটতে পারছি না, একদম থকে গেছি)।

উৎস

  1. – সংস্কৃত √ স্থগ্ + বাংলা আ;
  2. – তুলনামূলক হিন্দি থক্না।

থকিত

থকিত

বিশেষণ

  • – ক্লান্ত হয়ে সহসা থেমে গেছে এমন (‘থকিত পায়ের চলা দ্বিধা হতে’: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর)।

থতমত

থতমত

অব্যয় বিশেষ্য বিশেষণ

  • – বিহ্বল ভাব, মুখে কথা সরে না এমন ভাব (থতমত ভাব, থতমত খেয়ে যাওয়া, তার তখন থতমত অবস্থা)।

উৎস

  1. – দেশি;
  2. – তুলনামূলক সংস্কৃত স্তম্ভিত।

থতমত খাওয়া

থতমত খাওয়া

ক্রিয়া বিশেষ্য

  • – ঘাবড়ে যাবার ফলে কী বলবে তা স্থির করতে না পারা।

থপ

থপ

অব্যয়

  • – ভারী কোমল বস্তু পড়ার, রাখার বা ফেলার শব্দ (থপ করে এক তাল কাদা ফেলল)।

উৎস

  • – ধ্বন্যাত্মক।