পরিচয়

বাংলা বর্ণমালার চতুর্থ বর্ণ, চতুর্থ স্বরবর্ণ। দীর্ঘস্বর। উচ্চারণ-স্থান তালু। জিহ্বার অগ্রভাগ নীচের পাটির দাঁতের পশ্চাতে রেখে মধ্যভাগ তালুর নিকটে এনে, অধর নিম্নদিকে ঈষৎ ঝুকিয়ে এবং মুখবিবর অপেক্ষাকৃত সঙ্কুচিত করে উচ্চারণ করতে হয়। ব্যঞ্জন বর্ণের সাথে যুক্ত হলে ( ী ) এইরূপ আকার হয়। যথা-ক্ + ঈ = কী।

ব্যাকরণ

  • সম্বন্ধার্থে (জমিদারী); ভাবার্থে (পণ্ডিতী, নবাবী); ব্যবসায় বা উপজীবিকা অর্থে (সওদাগরী, মোক্তারী, ডাক্তারী); পদ বা কার্য্য অর্থে (জজিয়তী); বৃহদার্থে (মোটা ধারী বা কাপড়; খাঁদা-নাকী; তেজী); তন্নির্ম্মিত অর্থে (রেশমী, সূতী) ইত্যাদি অর্থে ব্যবহৃত বাংলা প্রত্যয় বিশেষ।
  • বিশেষণ হতে বিশেষ্য করার জন্য ভাববাচক ‘ঈ’ প্রত্যয় ফারসি হতে গৃহীত (বদনামী, বদ-মেজাজী)।
  • বিশেষ্য হতে বিশেষণ, -কারী ‘ঈ’ হিন্দি হতে গৃহীত (সরকারী, দরকারী)।
  • প্রাচীন বৌদ্ধ বাংলায় সপ্তমী বিভক্তি চিহ্ন-এ, তে (অধরাতী = অর্দ্ধরাত্রি বা অর্দ্ধ- রাত্রিতে : চর্যাপদ ২। ২; ২২, ১)।
  • প্রাকৃত নিয়মে প্রাচীন বাংলায় ই স্থলে ঈ। পতী, মুনী, হরী, মতী ইত্যাদি। (সব ঠায়ি আপচয় কৈল মোর হরী। আজ হৈতে আহ্মারা হৈলাহোঁ এক মতী। : শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন)।
  • আকারান্ত স্ত্রীলিঙ্গ শব্দের ঈকারান্ত রূপ সাধারণ (কোঁঅলী কোমলা বালী (বালা) ইত্যাদি)।

বিশেষ্য

  • কন্দর্প।
  • লক্ষ্মী (ঈশ্বরী ঈপতি-জায়া ঈষদ্-হাসিনী। : অ◦ ম◦)।

অব্যয় 

  • কোপ;
  • দুঃখ;
  • যন্ত্রণা।

উৎস

  • ঈ (গমন করা) + ক্বিপ্ (র্ত্তৃ)।

ঈঃ

ঈঃ

অব্যয়

  • যন্ত্রণাসূচক;
  • ক্রোধসূচক;
  • প্রাদেশিক সন্দেহার্থে (তা’-বই-কি);
  • তুচ্ছার্থে; সামান্যার্থে; ইস্ (ঈঃ ভারি তর্মদ্দাণি)।

ঈকার

ঈকার

বিশেষ্য

  • ঈবর্ণ; ঈ; ী;
  • ব্যঞ্জন বর্ণের সাথে ঈ যুক্ত হলে ( ী ) এইরূপ আকার হয়। যথা-ক্ + ঈ = কী।

উৎস

  • ঈ + কার (স্বার্থে)।

ঈকারাদি

ঈকারাদি

বিশেষণ

  • যার আদিতে ঈ আছে। ঈকার হইতে আরম্ভ করিয়া অন্যান্য বর্ণ।

উৎস

  • ঈকার + আদি।

ঈকারাদ্য

ঈকারাদ্য

বিশেষণ

  • যার আদিতে ঈ আছে। ঈকার হইতে আরম্ভ করিয়া অন্যান্য বর্ণ।

উৎস

  • ঈকার + আদি।

ঈকারান্ত

ঈকারান্ত

বিশেষণ

  • ঈকার যার অন্তে আছে।

ঈক্ষণ

ঈক্ষণ

বিশেষ্য

  • দৃষ্টি, দেখা;
  • চোখ।

উৎস

  • সংস্কৃত √ঈক্ষ্ + অন।

ঈক্ষমাণ

ঈক্ষমাণ

বিশেষণ

  • দৃষ্ট হচ্ছে এমন, পরিদৃশ্যমান।

উৎস

  • সংস্কৃত √ ঈক্ষ্ + শানচ্।

ঈক্ষিত

ঈক্ষিত

বিশেষণ

  • দেখা গেছে বা দেখা হয়েছে এমন, দৃষ্ট।

ঈদৃক

ঈদৃক (ঈদৃক্), ঈদৃশ

বিশেষণ

  • এইরকম, এর মতো, এর অনুরূপ (ঈদৃশ কথা কখনো শুনি নাই)।

উৎস

  • সংস্কৃত ইদম্ + √ দৃশ্ + ক্বিপ্, অ।

স্ত্রীলিঙ্গ

  • ঈদৃশী।