এযাবৎ 940 টি ভুক্তি প্রকাশিত হয়েছে।

প্রকাশিত ভুক্তি 940 টি।

এ পাতায় আছে 50 টি।

অকেজুয়া [সংস্কৃত অকার্য>] বিশেষণ অকাজের। ‘এমন স্কুল ও অলস উদর, যে নিতান্ত অকেজুয়া।‘ তারিণীচরণ মিত্র, ১৮০৩।
অকেজো [সংস্কৃত অকার্য্য (প্রাচীন বাংলা) ‘অকা-জুয়া’-আধুনিক বাংলা অকেজো। অ-কাজ (পালিভাষায় কজ্জ) + উআ] বিশেষণ কার্যের অনুপযুক্ত; যদ্বারা কোন কাজ হয় না; যে কোন কাজ করে না; নিষ্কর্মা; কাজে লাগে না এমন। ‘ভগবান তাদের হাত পা দিয়েছেন বটে, কিন্তু সে সকলই অকেজো।‘ মীর মশাররফ হোসেন, ১৮৬৯। যে বা যা কোনো কাজে লাগে না; অকর্মণ্য। ‘কেজো ক্রমে হচ্ছে অকেজো পলিটিক্সের পাঁশ ঠেলে।‘ কাজী নজরুল ইসলাম, ১৯২৬; ‘কার্য্যময় এই ব্রহ্মাণ্ড ভিতরে প্রকাণ্ড অকেজো পাহাড়।’ দ্বিজেন্দ্রলাল রায় (মন্দ্র)।
অকেতাবী [সংস্কৃত ন=অ + আরবী কিতাব>কেতাব + বাংলা ই] বিশেষণ পুঁথিগত নয় এমন। ‘বলবার কায়দাও অ-কেতাবী।‘ প্রমথ চৌধুরী, ১৯৩১। ইসলামী পরিভাষায় (আরবী আহলুল কিতাব, ফারসী আহলে কিতাব-এর অনুকরণে) যাদের উপর আল্লাহর কিতাব অবতীর্ণ হয়নি, অর্থাৎ ইয়াহুদী, খৃষ্টান ও মুসলিম ব্যতীত অন্য সকল ধর্মানুসারীগণ অকেতাবী।
অকেশরপরাগকোষ [সংস্কৃত ন = অ-কেশর ও পরাগ (পুষ্পরজঃ) যে কোষ (আধারে) (দ্বন্দ্ব সমাস ও বহুব্রীহি সমাস)] বিশেষ্য যে পুষ্পবৃন্তে কেশর এবং পরাগ কিছুই নাই; sessile anther.
অকৈতব [সংস্কৃত ন = অ-কৈতব (মিথ্যা)] বিশেষণ অকপট; ছলনাহীন; অকৃত্রিম। ‘অকৈতব কৃষ্ণপ্রেম যেন জনদ হেম।‘ কৃষ্ণদাস কবিরাজ, ১৫৮০। ‘অকৈতব কৃষ্ণ প্রেম, যেন জাম্বুনদ হেম।’ চৈতন্য চরিত। ‘অকৈতবে কৃষ্ণ সেবে করি প্রাণপণ।’ শিবায়ণ, রামেশ্বর ভট্টাচার্য
অকৈবল্য [সংস্কৃত] বিশেষ্য কৈবল্য রাহিত্য।
অকোট [সংস্কৃত] বিশেষ্য শুপারি বৃক্ষ [প্রচল অভাব]।
অকোপ [প্রাচীন বাংলা] বিশেষ্য ক্রোধাভাব। বিশেষণ অকোপন; অক্রোধ; ক্রোধহীন; শান্ত। ‘অকোপ হআঁ মোর অবস্থা দেখ।‘ শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন, বড়ু চণ্ডীদাস, ১৪৫০। ক্রিয়াবিশেষণ, ক্রোধ না করিয়া। স্ত্রীলিঙ্গ, অকোপা। বিশেষণ অকোপী, অকোপিনী।
অকোপন [সংস্কৃত] বিশেষণ সহসা ক্রুদ্ধ হয় না এমন। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৬৪।
অকোবিদ [সংস্কৃত অ-কোবিদ (পণ্ডিত)] বিশেষণ, বিশেষ্য অপণ্ডিত; নিরক্ষর; অজ্ঞ। স্ত্রীলিঙ্গ অকোবিদা।
অকোমল [সংস্কৃত] বিশেষণ কঠিন; কর্কশ; নিষ্ঠুর। বিশেষ্য অকোমলতা, অকোমলত্ব (-ল-)। স্ত্রীলিঙ্গ অকোমলা।
অঁকোল [সংস্কৃত অঙ্কোল] বিশেষ্য আঁকড়গাছ।
অকৌটিল্য [সংস্কৃত] বিশেষ্য অকুটিলতা; সারল্য।
অকৌশল [সংস্কৃত ন = অ-কুশল + অ (ভাববাচ্যে)] বিশেষ্য মনোভঙ্গ; অস্বরস। বিবাদ; ঝগড়া। ‘এইরূপে দুইজনে হল অকৌশল।’ মহাভারত (কাশীরাম), ১৬৫০। অদক্ষতা; অপটুতা; কৌশলাভাব। ‘এই অকৌশলের সত্বর সামঞ্জস্য বিধান করা আবশ্যক।‘ এডুকেশন গেজেট, ১৮৭৩।
অক্কট [তুলনামূলক – আকাট। বৌদ্ধযুগের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য। ‘অকটেতি আশ্চর্য্যং।’ (চর্য্যাচর্য্যবিনিশ্চয় পদের টীকা), ‘অক্কট ইত্যাশ্চর্য্যং’ (অদ্বয় বজ্র কৃত টীকা)] বিশেষণ অকট; আশ্চর্য। ‘অকট করুণা ডমরুলি বাজঅ,’ ‘অক্কট পণ্ডিঅ,’ বৌদ্ধ গান ও দোহা চর্য্যাচর্য্যবিনিশ্চয় ৩১।২।
অক্কা [অক (দুঃখ) + ক (কৈ-শব্দকরা) + অ (কর্তৃবাচ্যে), স্ত্রীলিঙ্গ আপ্ – যিনি সন্তানের প্রসবকাল হইতেই দুঃখসূচক শব্দ করেন] বিশেষ্য মাতা; জননী। তুলনামূলক — অত্তা (অম্বা); মারাঠী – অক্কা (মান্যা স্ত্রী, জ্যেষ্ঠা ভগিনী)।
অক্কা [ফারসী আকা (মালিক; প্রভু); তুকী আতা (পিতা)] মৃত্যু; পঞ্চত্ব। ‘ধাক্কা খেয়ে অক্কা পেয়ে, যেতে হবে কলের ঘাটে।‘ ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত, ১৮৫৮।
অক্কাপাওয়া [ফারসী – আকা (মালিক = ঈশ্বর)-প্রাপ্তি] বিশেষ্য ঈশ্বরপ্রাপ্তি; স্বর্গলাভ। ক্রিয়া প্রাণত্যাগ করা; পঞ্চত্ব পাওয়া; মরা; মারা যাওয়া। ‘ধাক্কা খেয়ে অক্কা পেয়ে, যেতে হবে কলের ঘাটে।‘ ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত, ১৮৫৮। ‘বাবা অক্কা পেলো,’ বুড়ো বক্কেশ্বর।
অক্টেভ [ইংরেজি] বিশেষ্য (সংগীত) অষ্টস্বর; এক ‘সা’ থেকে আরেক ‘সা’ পর্যন্ত আটটি স্বর। ‘আমার অক্টেভ নীচের দিকেই বা কতদূর …।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯৪।
অক্টোপাশ [ইংরেজি Octopus] বিশেষ্য আট বাহুওয়ালা সামুদ্রিক প্রাণীবিশেষ। ‘চায়ের পেয়ালায় হাত দেবার পূর্বেই অক্টোপাশের পঞ্চপাশ খসে গেল।‘ সৈয়দ মুজতবা আলী, ১৯৪৯। দৃঢ় বন্ধন। ‘কী ভীষণ অক্টোপাশে মনে হয় গিয়েছি জড়িয়ে।‘ আলমাহমুদ, ১৯৬৩।
অক্টোপাশ-বন্ধন [ইংরেজি অক্টোপাশ + সংস্কৃত বন্ধন] বিশেষ্য সহজে মুক্ত হওয়া যায় না এমন বন্ধন। ‘বেশী করে অক্টোপাশ-বন্ধনে আবদ্ধ করেছে।‘ মাহেনও পত্রিকা, ১৯৪৯।
অক্টোপাস [ইংরেজি Octopus] বিশেষ্য আট বাহুওয়ালা সামুদ্রিক প্রাণীবিশেষ। ‘ভিতরকার চেহারা দেখতে পাই কুৎসিত অক্টোপাস জন্তুর মতো।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯৩৪
অক্টোবর [ইংরেজি October. হিন্দি অক্তুবর; অনুকরণে (বাংলা আদালতের কাগজ-পত্রে) ‘অক্তোবর,’ ‘অক্তুবর’] বিশেষ্য জুলিয়ান এবং গ্রেগরিয়ান পঞ্জিকায় বছরের দশম মাস এবং সাতটি ৩১ দিন বিশিষ্ট মাসের মধ্যে ষষ্ঠ মাস। পুরাতন রোমান পঞ্জিকানুসারে বছরের অষ্টম মাস, রোমানরা জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসকে বছরের শুরুতে নিয়ে আসার পর অক্টোবর দশম মাসে পরিণত হলেও নাম ধরে রেখেছিল। অক্টোবর শব্দটি এসেছে ল্যাটিন ôctō (অর্থ “আট”) শব্দ থেকে। প্রাচীন রোমে, ধর্ম-বিশ্বাসানুসারে ৫ অক্টোবর তিনটি পবিত্র পাথর বা মুণ্ডাস প্যাটেটের একটি খোলা হতো; ১১ অক্টোবর পালিত হতো মেডিট্রিনালিয়া (Meditrinalia) উৎসব; ১২ অক্টোবর রোমান সম্রাট অগাষ্টাসের সম্মানে পালিত হত অগুস্তালিয়া (Augustalia) উৎসব; ১৫ অক্টোবর পালিত হতো রোমান কৃষি ও যুদ্ধ দেবতা মার্চ (Mars)-এর উদ্দেশ্যে পশু বলিদান উৎসব অক্টোবর হর্স (October Horse) এবং ১৯ অক্টোবর পালিত হতো আর্মিলাস্ট্রিয়াম (Armilustrium) উৎসব। এই তারিখগুলি আধুনিক গ্রেগরিয়ান পঞ্জিকার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। অ্যাংলো-স্যাক্সনসগুলির মধ্যে অক্টোবর ইন্টেরফিল্লি (Ƿinterfylleþ) নামে পরিচিত ছিল, কেননা, ধারণা করা হতো অক্টোবরের পূর্ণিমাতে (fylleþ) শীতকাল শুরু হয়েছিল। অক্টোবরকে সাধারণত উত্তর গোলার্ধে শরৎ ঋতু এবং দক্ষিণ গোলার্ধে বসন্ত সঙ্গে যুক্ত করা হয়। বাংলাদেশে প্রচলিত পঞ্জিকা বঙ্গাব্দ অনুযায়ী আশ্বিনের ১৬ তারিখ থেকে কার্তিকের ১৬ তারিখ পর্যন্ত ৩১ দিন অক্টোবর মাস, এবং শরৎকাল। — ‘২১ অক্টোবর ১৮২০।‘ সমাচার দর্পণ, ১৮২০। ‘১ অক্তোবর তারিখে এক বৈঠক হইবেক।‘ সমাচার দর্পণ, ১৮২৯।
অক্ত [আরবী ওয়াক্‌ত] বিশেষ্য বেলা; সময়। ‘ইচ্ছাগতে পঞ্চ অক্ত নামাজ তরফে।‘ সৈয়দ আলাওল, ১৬৮০।
অক্ত [সংস্কৃত অন্‌জ্‌ (মাথা) + ত (কর্মবাচ্যে); অক্ত অন্য বিশেষ্য পদের শেষে বসে পদটিকে বিশেষণে পরিণত করলেও এর স্বতন্ত্র ব্যবহার হয় না।] বিশেষণ লিপ্ত; মিশ্রিত। ‘তৈলাক্ত; রুধিরাক্ত; ঘর্মাক্ত ইত্যাদি। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৬৪।
অক্তোবর [ইংরেজি October. হিন্দি অক্তুবর; অনুকরণে (বাংলা আদালতের কাগজ-পত্রে) ‘অক্তোবর,’ ‘অক্তুবর’] বিশেষ্য জুলিয়ান এবং গ্রেগরিয়ান পঞ্জিকায় বছরের দশম মাস এবং সাতটি ৩১ দিন বিশিষ্ট মাসের মধ্যে ষষ্ঠ মাস। পুরাতন রোমান পঞ্জিকানুসারে বছরের অষ্টম মাস, রোমানরা জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসকে বছরের শুরুতে নিয়ে আসার পর অক্টোবর দশম মাসে পরিণত হলেও নাম ধরে রেখেছিল। অক্টোবর শব্দটি এসেছে ল্যাটিন ôctō (অর্থ “আট”) শব্দ থেকে। প্রাচীন রোমে, ধর্ম-বিশ্বাসানুসারে ৫ অক্টোবর তিনটি পবিত্র পাথর বা মুণ্ডাস প্যাটেটের একটি খোলা হতো; ১১ অক্টোবর পালিত হতো মেডিট্রিনালিয়া (Meditrinalia) উৎসব; ১২ অক্টোবর রোমান সম্রাট অগাষ্টাসের সম্মানে পালিত হত অগুস্তালিয়া (Augustalia) উৎসব; ১৫ অক্টোবর পালিত হতো রোমান কৃষি ও যুদ্ধ দেবতা মার্চ (Mars)-এর উদ্দেশ্যে পশু বলিদান উৎসব অক্টোবর হর্স (October Horse) এবং ১৯ অক্টোবর পালিত হতো আর্মিলাস্ট্রিয়াম (Armilustrium) উৎসব। এই তারিখগুলি আধুনিক গ্রেগরিয়ান পঞ্জিকার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। অ্যাংলো-স্যাক্সনসগুলির মধ্যে অক্টোবর ইন্টেরফিল্লি (Ƿinterfylleþ) নামে পরিচিত ছিল, কেননা, ধারণা করা হতো অক্টোবরের পূর্ণিমাতে (fylleþ) শীতকাল শুরু হয়েছিল। অক্টোবরকে সাধারণত উত্তর গোলার্ধে শরৎ ঋতু এবং দক্ষিণ গোলার্ধে বসন্ত সঙ্গে যুক্ত করা হয়। বাংলাদেশে প্রচলিত পঞ্জিকা বঙ্গাব্দ অনুযায়ী আশ্বিনের ১৬ তারিখ থেকে কার্তিকের ১৬ তারিখ পর্যন্ত ৩১ দিন অক্টোবর মাস, এবং শরৎকাল। — ‘২১ অক্টোবর ১৮২০।‘ সমাচার দর্পণ, ১৮২০। ‘১ অক্তোবর তারিখে এক বৈঠক হইবেক।‘ সমাচার দর্পণ, ১৮২৯।
অক্ত্র [সংস্কৃত] বিশেষ্য বর্ম; সাঁজোয়া; mail.
অক্রম [সংস্কৃত ন = অ (অভাব)-ক্রম্ (শৃঙ্খলা)] বিশেষ্য বিশৃঙ্খল; অনিয়ম; ঠিক পর পর নয়।
অক্রান্ত [সংস্কৃত অ-ক্রান্ত] বিশেষণ অনাক্রান্ত। অনতিক্রান্ত, অনতিবাহিত। অপরাজিত। স্ত্রীলিঙ্গ অক্রান্তা।
অক্রিয় [সংস্কৃত ন = অ (কুত্সিত)-ক্রিয়া যার – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ অক্রিয়ান্বিত; শাস্ত্রীয় কর্মরহিত। [ন = অ (নাই) ক্রিয়া (পাপ-পুণ্যরূপ) যার – বহুব্রীহি] কর্শ্মশূন্য; ক্রিয়ারহিত; নিষ্ক্রিয়। ‘পর্বত বা সরোবর বিরাজ করে অক্রিয় অর্থাৎ প্যাসিভভাবে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯৩৬। বিশেষ্য পরমাত্মা। স্ত্রীলিঙ্গ অক্রিয়া।
অক্রিয়কর্মা, অক্রিয়কর্ম্মা [সংস্কৃত অক্রিয়কর্ম্মন্ প্রথমা একবচন] বিশেষণ কুকর্মকারী।
অক্রিয়মাণ [সংস্কৃত ন = অ + কৃ + আন (কর্মবাচ্যে) ম, য আগম, কৃ + য়-মান, ই আগম = ক্রিয়মাণ] বিশেষণ যে কাজ করে না; নিষ্কর্মা। বিশেষ্য অক্রিয়মানতা, অক্রিয়মানত্ব।
অক্রিয়া [সংস্কৃত] বিশেষ্য ক্রিয়ার অভাব; অবৈধ বা অশাস্ত্রীয় ক্রিয়া; ধর্মকার্যে অবহেলা; অন্যায় কার্য; দুষ্কর্ম।
অক্রিয়াচরণ [সংস্কৃত অক্রিয়া + আচরণ] বিশেষ্য অবৈধ ক্রিয়ার আচরণ; অশিষ্টাচরণ; কুব্যবহার।
অক্রিয়ানিরত [সংস্কৃত অক্রিয়া + নিরত] বিশেষণ অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াপর; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াশক্ত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়ানিষ্ঠ [সংস্কৃত অক্রিয়া + নিষ্ঠ] বিশেষণ অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াপর; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াশক্ত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়ান্বিত [সংস্কৃত] বিশেষণ অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়াপর; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াশক্ত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়াপর [সংস্কৃত] বিশেষণ, অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াশক্ত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়াময় [সংস্কৃত অ + ক্রিয়া + ময় (পূর্ণার্থে ময়ট্)] বিশেষণ, অনুচিত বা অসঙ্গত কর্মপূর্ণ; দুষ্ট।
অক্রিয়াযুক্ত [সংস্কৃত] বিশেষণ অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াপর; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াশক্ত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়ারত [সংস্কৃত] বিশেষণ অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াপর; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়াশক্ত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়াশক্ত [সংস্কৃত] বিশেষণ অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াপর; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াসক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রিয়াসক্ত [সংস্কৃত] বিশেষণ অক্রিয়ানিরত; অক্রিয়ানিষ্ঠ; অক্রিয়ান্বিত; অক্রিয়াপর; অক্রিয়াযুক্ত; অক্রিয়ারত; অক্রিয়াশক্ত; কুকর্মশালী; কুকার্যে অভ্যস্ত; পাপরত; পাপিষ্ঠ।
অক্রীড়া [সংস্কৃত ন = অ-ক্রীড়া] বিশেষ্য অযোগ্য ক্রীড়া; অনুপযুক্ত খেলা।
অক্রীত [সংস্কৃত ন = অ-ক্রীত] বিশেষণ যা ক্রয় করা হয় নাই; যা কেনা নহে।
অক্রুদ্ধ [সংস্কৃত ন = অ-ক্রুদ্ধ] বিশেষণ যে রুষ্ট নয়; ক্রোধহীন। শান্ত; স্থির। বিশেষ্য অক্রোধ [প্রচল অভাব]; অক্রদ্ধতা। স্ত্রীলিঙ্গ, অক্রুদ্ধা।
অক্রূর [সংস্কৃত ন = অ-ক্রুর (কুটীল, অসরল)] বিশেষণ সরল; অকুটিল। ‘অক্রূর-যানের [ভাগবত] শ্লোক পঢ়িয়া পঢ়িয়া। বৃন্দাবন দাস, ১৫৮০। স্ত্রীলিঙ্গ অক্রুরা। বিশেষ্য অক্রূরতা — সরলতা।
অক্রূর [সংস্কৃত] বিশেষ্য কৃষ্ণের পিতৃব্য (যদুবংশীয় শফল্কের ঔরসে গান্দিনীর গর্ভে জন্ম। কংশ-বধের জন্য বলরাম ও কৃষ্ণকে বৃন্দাবন হইতে মথুরা লইয়া যান)। ‘হায় রে যমুনে, কেনে না ডুবিল তোমার জলে, অদয় অক্রুর যবে সে আইল ব্রজমণ্ডলে।’ ব্রজাঙ্গনা কাব্য, মাইকেল মধুসূদন দত্ত।
অক্রূরযান [সংস্কৃত] বিশেষ্য ভাগবত (সোজা পথ অর্থে)। ‘অক্রূরযানের শ্লোক পঢ়িয়া পটিয়া। বৃন্দাবন দাস, ১৫৮০।
অক্রেয় [সংস্কৃত ন = অ-ক্রী (ক্রয় করা) + য (কর্মবাচ্যে)] বিশেষণ আক্রা; যা মূল্যাধিক্য বশতঃ ক্রয় করিতে পারা যায় না; দুর্মূল্য; যা মূল্যে পাওয়া যায় না; মহার্ঘ। ‘যখন যে বস্তু অধিক মূল্যে কিনিতে হয়, তখন তাহাকে মহার্ঘ বা অক্ৰেয় বলে।‘ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৫১। বিশেষ্য, অক্রেয়তা।
অক্রোধ [সংস্কৃত ন = অ-ক্রোধ] বিশেষণ, ক্রোধশূন্য; যার ক্রোধ নাই; ক্রোধহীন। ‘অক্রোধ পরমানন্দ মোর গৌর হরি।’ চৈতন্য চরিত, কৃষ্ণদাস কবিরাজ, ১৫৮০। বিশেষ্য ক্রোধাভাব; গৃহীর পক্ষে ধৃতি, ক্ষমা ইত্যাদি দশকর্মান্তর্গত ধর্মবিশেষ; ক্রোধহীনতা। ‘অক্রোধে যে স্বামী সেবা করে, সেই স্ত্রী ভর্তার ধর্ম্মভাগিনী ও হৃদয়ঙ্গমা হয়।‘ স্ত্রীশিক্ষাবিধায়ক পত্রিকা, ১৮২২।
অক্রোধন [সংস্কৃত ন = অ-ক্রোধন] বিশেষণ সহসা, ক্রোধের কারণ থাকলেও যার ক্রোধের উদ্রেক হয় না; যে সহজে ক্রোধ সংবরণ করে; অকোপন; ক্রুদ্ধস্বভাব নয় এমন। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৬৪। বিশেষ্য কুরুবংশীয় রাজা অযুতায়ুসের পুত্র।
অক্রোধিত বিশেষণ যার ক্রোধ হয় নাই; অক্রুদ্ধ; যে ক্রুদ্ধ হয় না বা ক্রোধ করে না; ক্রোধহীন; ক্রোধমুক্ত; রোষশূন্য।
Scroll Up