এযাবৎ 940 টি ভুক্তি প্রকাশিত হয়েছে।

প্রকাশিত ভুক্তি 940 টি।

এ পাতায় আছে 50 টি।

অকুস্থল [আরবী ওয়াকুয়াত + সংস্কৃত স্থল] বিশেষ্য (খুন, মারপিট, চুরি, ডাকাতি ইত্যাদির) ঘটনাস্থল। ‘দারোগা সাহেব একপাল পুলিশসহ অকুস্থলে হাজির হইলেন।‘ আবুল মনসুর আহমদ, ১৯৩৫।
অকুস্থান [আরবী ওয়াকুয়াত + সংস্কৃত স্থান] বিশেষ্য ঘটনাস্থল। ‘অকুস্থানে গমন করিয়া রিলিফের কাজ করিতে লাগিলেন।‘ আবুল মনসুর আহমদ, ১৯৩৫।
অকুৎসিত [(গ্রাম্য বিপরীতার্থে আরও চলিত আছে ‘অকুচ্ছিত’] বিশেষণ সুন্দর। সম্ভ্রান্ত।
অকূপার [সংস্কৃত অ-কূ (স্থল) পার — যার পারে স্থল নাই] বিশেষ্য সমুদ্র। ‘ক্ষীর অকূপার’ রামায়ণ, রাজনারায়ণ বসু কূর্ম [অপ্রচলিত]। ক্রিয়াবিশেষণ অপরিসীমভাবে; তীব্রভাবে। ‘দুৰ্ব্বহ বাড়ব বহ্নি বহে অকূপার।‘ কৃষ্ণরাম দাস, ১৭২০।
অকূর্চ্চ [সংস্কৃত] বিশেষণ সরল। বিশেষ্য বুদ্ধ।
অকূল [সংস্কৃত ন = অ (নাই) কূল (তীর) যার – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ যার তীর নাই; তীরহীন; কূলহীন; অপার। ‘নৌকা লয় অকূল সাগরে।‘ কৃষ্ণরাম দাস, ১৭২০। অনন্ত; অসীম; সীমাহীন। গাও রে আজি নিশীথ-রাতে অকুল-পাড়ির আনন্দগান।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯০৬; ‘তখন আছিলে তুমি একাকিনী অখণ্ড অকূল আত্মহারা,’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর অতি বিস্তৃত; সুবিশাল। ‘অকূল সাগর জলে ভাসে একাকিনী।’ মেঘনাদবধ কাব্য, মাইকেল মধুসূদন দত্তবিশেষ্য সাগর; সমুদ্র; সিন্ধু। ‘ঢেউ দেখে যে ভয় পাবে না, অকূল পারে নেযাই তারে।’ গিরিশচন্দ্র ঘোষ, ১৮৮৭। [দ্রষ্টব্য — অপার অতল সাগরের সহিত তুলনীয় বলিয়া রূপকচ্ছলে জীবন সংসার, প্রেম, শোক ইত্যাদির সিন্ধু বুঝাইতে অকূল শব্দ ব্যবহৃত হয়।] যার কূল কিনারা নাই; যার ঠিক ঠিকানা নাই; যে বিষয়ের অন্ত বা তল পাওয়া যায় না। ‘অকূল মাঝে ভাসিয়ে তরী যাচ্ছি অজানায়।’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ঠিকানা; ঠাঁই; গৃহ বা সমাজের আশ্রয়শূন্যতা; ভরসা বা সহায়হীনতা; অশরণ; অনাশ্রয়। ‘বুঝি কালী অকূলেতে কুলাইল কূল।’ বাসবদত্তা; ‘কুল ত্যজে হে অকূলে ভাসি,’ গিরিশচন্দ্র ঘোষ, ১৮৮৭; ‘আমার দিন কি যাবে এই হালে আমি পড়ে আছি অকূলে।‘ লালন, ১৮৯০। নিরুপায়; যার কোনো আশ্রয় নেই। ‘সুখ দুঃখ মাঝে দোলে, নিবিড় আঁধারে, অকূলে না কুল পায়, দারুণ শৃঙ্খল পায়। নিরানন্দ নিরুপায়, পলাইতে নারে,’ গিরিশচন্দ্র ঘোষ, ১৮৮৭। সঙ্কট; বিপদ; শোকতাপ; দুঃখ; ভবযন্ত্রনা। ‘রাখ অকূলে তনয়ারে তারিণী।’ গিরিশচন্দ্র ঘোষ; ‘ছিল যারা অনুকূল, তারা হয়ে প্রতিকূল, যায় চলে অকূলে ফেলিয়া।’ বাসবদত্তা; ‘ফেলিয়া অকুলে, সে গেছে অকূলে’ গিরিশচন্দ্র ঘোষ [এইঅর্থে ‘অকুল’ শব্দও প্রাচীন বৈষ্ণব সাহিত্যে আছে]। অপার ভুবন। ‘চলবি ছুটে অকূল পানে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯১৬। অপার শুন্য জগৎ। ‘আশমানে তারা চায় – চলে আয় এ অকৃল।‘ কাজী নজরুল ইসলাম, ১৯২৬। জানা নেই এমন স্থান। ‘সকালের রূঢ় রৌদ্রে ডুবে যেত কোন অকূলে।‘ জীবনানন্দ দাশ, ১৯৪২।
অকূলতা [সংস্কৃত] বিশেষ্য কূলহীনতা। ‘দৃশ্যবিহীন অকূলতায় খোলে জলের জটা।‘ শঙ্খ ঘোষ, ১৯৬৬।
অকূলপাথার [সংস্কৃত অকূল (কূলহীন) পাথার (পাথস্-জল — জ্ঞানেন্দ্রমোহন দাস)/স প্রান্তর> (গোলাম মুরশিদ)] বিশেষ্য মহাবিপদ। ‘অবশেষে অকূলপাথারে পড়িয়া দুকূল হারান।‘ ভবানীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়, ১৮২৮; ‘তুমি হে ভরসা মম অকূল পাথারে;’ দ্বিজেন্দ্রনাথ ঠাকুর। কূল কিনারাহীন জল-বিস্তার; অসীম সমুদ্র। ‘মন্ত্রীটা মরুক ডুবে অকূল পাথারে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৮৯।
অকূলের পতি [সংস্কৃত অকূল> + সংস্কৃত পতি>] বিশেষ্য বিপদে ত্রাণকর্তা। ‘লালন কয় অকূলের পতি কে বলবে তোমায়।‘ ফকির লালন, ১৮৯০।
অকৃত [সংস্কৃত ন = অ-কৃত] বিশেষণ যা কৃত নয়; যা করা হয় নাই; অননুষ্ঠিত; অসম্পাদিত; অনিষ্পন্ন। ‘তাহাতে কোন প্রকার দুষ্কৰ্ম্ম অকৃত থাকিবে।‘ অক্ষয়কুমার দত্ত, ১৮৪৪। ‘অকৃতদার।’ নিরর্থক; বিফল। ‘অকৃতাত্মা।’ সঙ্কল্প রহিত। ‘অকৃতনিশ্চয়।’
অকৃতকর্ম [সংস্কৃত] বিশেষ্য করা হয়নি এমন কাজ। ‘প্রথম বয়সের সমস্ত অকৃতকর্মের বকেয়া।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯৩৭।
অকৃতকর্মা, অকৃতকর্ম্মা [সংস্কৃত অ + কর্ম্মন্ – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ, অকেজো; অপটু; যে কৃতী নহে; যে কাজ করিয়া শিক্ষিত হয় নাই; unpractical. ‘ছেলেটা অকৃতকর্মা।’ অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯২৫।
অকৃতকাম [সংস্কৃত] বিশেষণ অসফল। ‘ম্যান্ডারিনরাও এ প্রভাবের অনতিক্রম্যতা অস্বীকারে অকৃতকাম।‘ শিবনারায়ণ রায়, ১৯৭৩।
অকৃতকার্য, অকৃতকার্য্য [সংস্কৃত ন = অ-কৃতকার্য্য] বিশেষণ বিফল-মনোরথ; নিষ্ফল; হতাশ; ব্যর্থ। ‘বাপ অকৃতকার্য হইয়া চলিয়া গেলেই বালকদের সঙ্গে বাজি রাখিয়া …।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯১বিশেষ্য অকৃতকার্যতা।
অকৃতকার্যতা [সংস্কৃত] বিশেষ্য ব্যর্থতা। ‘ক্ষতি বা অকৃতকার্যতা ভয়ের বিষয় নহে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯০৮।
অকৃতকীর্তি, অকৃতকীর্ত্তি [সংস্কৃত ন = অ-কৃত-কীর্ত্তি] বিশেষণ অকৃতকর্মা; কীর্তিহীন; অকর্মা; অকর্মণ্য; কৃতী নয় এমন। ‘বিদ্যাসাগর এই অকৃতকীর্ত্তি অকিঞ্চিৎকর বঙ্গসমাজের মধ্যে নিজের চরিত্রকে মনুষ্যত্বের আদর্শরূপে প্রস্ফুট করিয়া” — চারিত্রপূজা; ‘সেখানকার অখ্যাতনামা অকৃতকীর্তি লোকরা তাদের সর্বাপেক্ষা পরিচিত।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯৫।
অকৃতকৃত্য [সংস্কৃত] বিশেষণ অকৃতকার্য। অকৃতার্থ; অচরিতার্থ। কর্তব্য পালনে অক্ষম। নিরাশ। [সংস্কৃত অ (অননুষ্ঠিত) কৃত্য (কার্য্য) যৎকর্ত্তৃক — বহুব্রীহি সমাস] অননুষ্ঠিতকর্মা।
অকৃতঘ্ন [সংস্কৃত ন = অ-কৃত (উপকার)-ঘ্ন (যে নাশ করে] বিশেষণ, কৃতজ্ঞ; যে কৃত উপকার মানিয়া চলে; যে উপকার স্বীকার করে; কৃত উপকার স্মরণকারী। স্ত্রীলিঙ্গ, অকৃতঘ্না। বিশেষ্য, অকৃততা, অকৃতত্ব।
অকৃতজ্ঞ [সংস্কৃত ন = অ-কৃতজ্ঞ (যে উপকার স্বীকার করে)- উপপদ সমাস] বিশেষণ কৃতজ্ঞ নয়; উপকার অস্বীকারকারী; উপকারকের সহিত যে সদ্ব্যবহার করে না; যে উপকারকের অনিষ্ট চিন্তা করে; উপকারীর উপকার স্বীকার করে না এমন। ‘আমায় নিতান্ত স্বার্থপর ও যার পর নাই অকৃতজ্ঞ ভাবিতেছেন।‘ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৪৭। বিশেষ্য অকৃতজ্ঞ, অকৃততা — অকৃতজ্ঞের ব্যবহার; উপকার অস্বীকার করণ; উপকারকের প্রতি অসদ্ব্যবহার।
অকৃতজ্ঞতা [সংস্কৃত] বিশেষ্য কৃতজ্ঞতাহীনতা। ‘তাহার নিকট সম্পূর্ণ অপরাধী হইয়াছ, এবং … অকৃতজ্ঞতা প্রদর্শন করিয়াছ।‘ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৪৭।
অকৃতদার [সংস্কৃত ন = অ-কৃত-দার (ভার্য্যা) – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ যে দার পরিগ্রহ করে নাই; অনূ়ঢ়; অবিবাহিত। ‘আমি অকৃতদার।‘ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৬৩। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতদারা।
অকৃতনিশ্চয় [সংস্কৃত ন = অ-কৃত-নিশ্চয়] বিশেষণ অস্থিরীকৃত; অদৃঢ়-সঙ্কল্প। বিশেষ্য অকৃতনিশ্চয়তা।
অকৃতবিদ্য [সংস্কৃত অকৃত – বিদ্য] বিশেষণ অশিক্ষিত। সমাচার দর্পণ, ১৮২০।
অকৃতবিবাহ [সংস্কৃত ন = অ-কৃত (বিহিত) বিবাহ (দারপরিগ্রহ) যত্কর্ত্তৃক – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ যার বিবাহ হয় নাই; অবিবাহিত; অনূঢ়। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতবিবাহা।
অকৃতবেশা [সংস্কৃত] বিশেষণ, স্ত্রীলিঙ্গ সুসজ্জিত নয় এমন। ‘অকৃতবেশা, অসংস্কৃতা মেয়েলি ছড়াগুলি দাঁড় করাইয়া দিলে …।’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯০৭।
অকৃতাত্মা [সংস্কৃত অকৃত + আত্মা] বিশেষণ বিফলাত্মা; অনর্থক জীবন। অনাত্মবান্; ঈশ্বরাত্মকতাহীন।
অকৃতাদর [সংস্কৃত অকৃত আদর যাকে বা যৎকর্তৃক – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ অনাদৃত। অনাদরকারী। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতদরা।
অকৃতাপরাধ [সংস্কৃত ন = অ + কৃত = অকৃতঅপরাধ (যৎকর্তৃক) – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষ্য করা হয়নি এমন অপরাধ। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৬৪; ‘ওথেলো অকৃতাপরাধে তাঁহার কুলটা বলিয়া অপমানের একশেষ করিয়াছিলেন।‘ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, ১৮৮৭। বিশেষণ নিরপরাধ। নির্দ্দোষ। ক্রিয়াবিশেষণ বিনা অপরাধে; অপরাধ ব্যতিরেকে। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতাপরাধী।
অকৃতার্থ [ন = অ-কৃত (সাধিত)- অর্থ (প্রয়োজন) যত্কর্ত্তিক – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ অকৃতকার্য; অসফল; বিফল-মনোরথ। ‘পৃথিবীতে শত শত অকৃতাৰ্থ জীবন পরম দুঃখে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯৪। অচরিতার্থ; ব্যর্থ। ‘এইজন্য পৃথিবীতে অনেক পুরুষ অকৃতার্থ।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯৭। অকৃতকার্য। ‘নিজগুণেই অকৃতার্থ হতে পারি।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯১১। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতার্থা। বিশেষ্য অকৃতার্থতা।
অকৃতার্থতা [সংস্কৃত অকৃত-অর্থ-তা] বিশেষ্য অসাফল্য। ‘আমাদের দেশে এই অকৃতার্থতার কি একটা কারণ নয় মেয়েরাই?’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯৭।
অকৃতাহ্নিক [সংস্কৃত অকৃত (ন-অনুষ্ঠিত-আহ্নিক (দিনকৃত্য উপাসনা) যৎকর্তক – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ যে দৈনিক ক্রিয়ার অনুষ্ঠান করে নাই; দৈনিক ক্রিয়াহীন। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতাহ্নিকা।
অকৃতি [সংস্কৃত অকৃতী] বিশেষণ অযোগ্য। ‘অকৃতি অবোধ অতি নাই কিন্তু জ্ঞান।‘ মানিকরাম গাঙ্গুলী, ১৭৮১। অসমর্থ। ‘অকৃতি সহোদর কৃতি সহোদরের শ্রমার্জিত ধনের অংশী হয়েন।‘ বঙ্গদূত পত্রিকা, ১৮২৯।
অকৃতিত্ব [সংস্কৃত অকৃতিন্ (অক্ষম) + ত্ব (ভাববাচ্যে)] বিশেষ্য অক্ষমতা; অযোগ্যতা; অপটুতা; কৃতিত্ব নেই এমন অবস্থা; অযোগ্যতা। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৬৪; ‘স্ত্রী এই উক্তিতে তাঁহার অকৃতিত্বের প্রতি লক্ষ্য করিলেন।‘ প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়, ১৮৯৭।
অকৃতী [সংস্কৃত অকৃতিন্ (ন = অ-কৃতিন্)] বিশেষণ, যে কৃতী নয়; অক্ষম; অযোগ্য; কার্য্যে অদক্ষ; অপটু। ‘ঐ অকৃতী ভ্রাতা যদ্যপি কোন বিষয়কৰ্ম্মে প্রবৃত্ত থাকিতেন।‘ বঙ্গদূত পত্রিকা, ১৮২৯; ‘আমি অতি অকৃতী অধম দুরাচার।’ কমলাকান্ত, বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
অকৃতোত্তর [সংস্কৃত অকৃত + উত্তর] বিশেষণ যার জবাব দেত্তয়া হয় নাই। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতোত্তরা।
অকৃতোদ্বাহ [সংস্কৃত ন = অকৃ-ত, উদ্বাহ + যৎকর্তৃক – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ অবিবাহিত; আইবুড়। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃতোদ্বাহা। বিশেষ্য অকৃতোদ্বাহতা, অকৃতোদ্বাহত্ব।
অকৃত্য [সংস্কৃত ন = অ (কুত্সিত)-কৃত্য (কার্য্য)] বিশেষ্য নিন্দিত কার্য। বিশেষণ যা করা উচিত নয়; অকরণীয়।
অকৃত্যকারী [সংস্কৃত ন = অ (কুৎসিত)-কৃত্য (কার্য্য) + কারী] বিশেষ্য কুকর্ম্মী।
অকৃত্রিম [সংস্কৃত ন = অ + কৃত্রিম] বিশেষণ যা কাল্পনিক নহে; স্বাভাবিক। বিশুদ্ধ; অমিশ্রিত; খাঁটি। ‘চতুর্দিকে অকৃত্রিম স্বর্ণরচিত ঝালর।‘ সমাচার দর্পণ, ১৮২১। ‘অকৃত্রিম ঔষধ; অকৃত্রিম সুবর্ণ। অকপট; আন্তরিক; ছলশূন্য। ‘অকৃত্রিম অনুরাগের দৃঢ়তর প্রমাণস্বরূপ তাঁহার চরণে সমর্পণ করিলেন।‘ ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ১৮৪৯। ‘অকৃত্রিম স্নেহ বা প্রণয়।’
অকৃত্রিমতা [সংস্কৃত] বিশেষ্য খাঁটিত্ব। ‘আমার ভিতরকার সত্য যথোচিত শ্রদ্ধা এবং অকৃত্রিমতার সঙ্গে প্রকাশ করবার চেষ্টা করি।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৮৯৪।
অকৃপ [সংস্কৃত ন = অ (নাই) কৃপা (দয়া) যার – বহুব্রীহি সমাস; কৃপা = কৃপ] বিশেষণ নির্দয়; অকরুণ। কৃপ (কৃপাচার্য্য) শূণ্য। স্ত্রীলিঙ্গ অকৃপা। বিশেষ্য নির্দয়তা; কৃপাশূন্যতা; কৃপার অভাব।
অকৃপণ [সংস্কৃত] বিশেষণ উদার। ‘অনেক দেছেন যিনি মানবেরে অকৃপণ করে।‘ সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত, ১৯১২। পর্যাপ্ত। ‘শিক্ষাবিস্তারের … অকৃপণ অধ্যবসায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯৪১।
অকৃপণবর্ষণ [সংস্কৃত] বিশেষ্য অবাধে বর্ষণ। ‘অকৃপণবর্ষণ করুণাঘন হে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯২৭।
অকৃপণা [সংস্কৃত] বিশেষণ, স্ত্রীলিঙ্গ উদার। ‘অকৃপণা কবিপ্রতিভা তাহার প্রতিও অজস্র কল্পনাবর্ষণ করিয়াছে।‘ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ১৯০০। কম প্রতিকূল। যেসব দেশে প্রকৃতি ইউরোপের চেয়ে অকৃপণা …।‘ সবুজপত্র পত্রিকা, ১৯২০।
অকৃপা [সংস্কৃত] বিশেষ্য নির্দয় ব্যবহার। ‘বসিল রুষিয়া তাহারে অকৃপা করি।‘ ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর, ১৭৬০।
অকৃষক [সংস্কৃত] বিশেষ্য যে কৃষিকাজের সাথে জড়িত নয়। ‘কৃষকের জোত অকৃষকে কিনতে পারবে কি না।‘ প্রমথ চৌধুরী, ১৯১৯। কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত নয় এমন। ‘লক্ষ লক্ষ দরিদ্র অকৃষক পরিবারের কথা উল্লেখ করিয়াছি।‘ সওগাত পত্রিকা, ১৯৪৬।
অকৃষ্ট [সংস্কৃত ন = অ-কৃষ (কর্ষণ করা) + ত (র্ম)] বিশেষণ অকর্ষিত; যাতে চাষ করা হয় নাই; কর্ষণ করা নহে এমন; চাষ করা হয়নি এমন। ‘এই এক নূতন ও অকৃষ্ট ক্ষেত্র।‘ সমাচার দর্পণ, ১৮৩১; ‘অকৃষ্ট ভূমি।’ অননুশীলিত; uncultured.
অকৃষ্টপচ্য [সংস্কৃত অকৃষ্ট -পচ্ (পাক করা) + য (কর্মবাচ্যে, কর্তৃবাচ্যে)] বিশেষণ পতিত ক্ষেত্রে স্বয়ং পক্ব।
অকৃষ্ণ [সংস্কৃত ন = অ-কৃষ্ণ (কৃষ্ণবর্ণ)] বিশেষণ কৃষ্ণবর্ণহীন; কালো নয় এমন। ‘দেহকাস্ত্যে হয় তিঁহো অকৃষ্ণবরণ।‘ কৃষ্ণদাস কবিরাজ, ১৫৮০। হলুদ। ‘অকৃষ্ণ বরণে কহি পীতবরণ।‘ কৃষ্ণদাস কবিরাজ, ১৫৮০। নিষ্কলঙ্ক। ‘অকৃষ্ণ শান্তনুতনয়।‘ কালীপ্রসন্ন সিংহ, ১৮৬৬। বিশেষ্য পীত বর্ণ। ‘অকৃষ্ণ বরণে কহি পীতবরণ।’ চৈতন্য চরিত
অকৃষ্ণকর্মা, অকৃষ্ণকর্ম্মা [সংস্কৃত ন = অ (নাই) কৃষ্ণ (কাল = পাপ)-কর্মন্ (কার্য্য) যার – বহুব্রীহি সমাস] বিশেষণ দুষ্কর্মরহিত; নিষ্কলঙ্ক; নিষ্পাপ। ‘অকৃষ্ণকর্ম্মা শান্তনুতনয়।’ মহাভারত, কালীপ্রসন্ন সিংহ
Scroll Up