এযাবৎ 940 টি ভুক্তি প্রকাশিত হয়েছে।
ভুক্তি
আদ্যক্ষর
ব্যঞ্জনবর্ণমালার একাদশ ও ট বর্গের প্রথম, অল্পপ্রাণ, অঘোষ বর্ণ। উচ্চারণ স্থান মূর্দ্ধা, তাই এটি মূর্দ্ধণ্য বর্ণ। ট ও টবর্গীয় বর্ণগুলি কাঠিন্যব্যঞ্জক। দৃঢ়, শুষ্ক, কঠোর অর্থে অন্যান্য বর্ণসহ ট যোগ হয়। যেমন: টক্, খট্, টন্, ফট্, কাট, ইট, কটাহ ইত্যাদি। [টক্ + অ (কর্তৃবাচ্য)] বিশেষ্য শব্দ; টঙ্কার। উচ্চারণ সাদৃশ্যযুক্ত গ্রাম্য চলতি কথার মাত্রাস্বরূপ পদের সহচর শব্দের আদ্যক্ষর। বাংলায় এর ভূরি ব্যবহার। যেমন ‘দেখা টেকা; ভুলান টুলান (টেঁকচাঁদ ঠাকুর); ভাত টাত; বই টই ইত্যাদি।
[হিন্দিতে এইরূপ ‘উ’ এবং ‘ও’ বর্ণের প্রয়োগাধিক্য। যেমন: দেখা ওখা; ভুল উল; ভাত ওত; বহি ওহি ইত্যাদি। তুলনামূলক পশ্চিমবঙ্গে এইরূপ স, শ। যেমন: অবুরে সবুরে; বোঝা সোঝা; অত শত; বুদ্ধি শুদ্ধি; বুঝি সুঝি; ইত্যাদি। পূর্ববঙ্গে প্রাদেশিক ব্যবহারে ট = ড। খাটে = খাডে, কেটা = কেডা; ছুটিল = ছুডিল; কাটি = কাডি ইত্যাদি]।
সম্পর্কিত ভুক্তি
আপনার জন্য প্রস্তাবিত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll Up